রাধারাণীর পূজা করার গুরুত্ব

প্রকাশ: ২ অক্টোবর ২০২২ | ৫:২৪ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ২ অক্টোবর ২০২২ | ৫:২৪ পূর্বাহ্ণ

এই পোস্টটি 120 বার দেখা হয়েছে

রাধারাণীর পূজা করার গুরুত্ব

জড় যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাবার জন্য এবং শ্রীকৃষ্ণের প্রিয় হওয়ার জন্য, আমাদের রাধারাণীর পূজা করা উচিত। শ্রীল ভক্তিবিনোদ ঠাকুর এক মহান বৈষ্ণব আচার্য তিনি তার রচিত গ্রন্থ গীতাবলীতে রাধারাণীর পূজার মাহাত্ম্য গুরুত্ব সহকারে আলোচনা করেছেন। তিনি লিখেছেন, “রাধা-ভজনে যদি মতি নাহি ভেলা/কৃষ্ণভজন তবে অকারণ গেলা।“যদি কারও অভিলাষ রাধা ভজনে না জন্মায় তাহলে তার তথাকথিত কৃষ্ণভজন পূর্ণরূপে অর্থহীন। একদা যখন এক ব্যক্তি রাধাকুণ্ডে বসে কৃষ্ণভজন করছিলেন এবং কৃষ্ণের কৃপা ভিক্ষা করছিলেন তখন শ্রীল ভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতী ঠাকুর তৎক্ষণাৎ মন্তব্য করেন, “আমরা শ্রীমতি রাধারাণীর ভৃত্য এবং তাঁর ভৃত্যের সেবক। এটিই হলো রূপ গোস্বামীর সমস্ত অনুগামীদের মনোভাব। “আমরা রাধারাণীর ভক্ত না হয়ে কৃষ্ণকে প্রাপ্ত করতে পারি না। তিনি দেবদেবীদের মতো নয়। তিনি জড়জগতের যে কোন দেব-দেবীর থেকে মহান। কৃষ্ণ নিখিল বিশে^র সমস্ত জীবের পরম পিতা। রাধা কৃষ্ণের অন্তরঙ্গা কান্তা, তিনি হলেন নিখিল বিশ্বের পরম মাতা। আমাদের সকলেরই এই অভিজ্ঞতা আছে যে পিতা অপেক্ষা মাতাকে সন্তুষ্ট করা অপেক্ষাকৃত সহজ। কারণ মায়েরা কোমলহৃদয়া। তাই আমাদের চিন্ময় মাতা রাধারাণীর হৃদয় মাখনের মতো কোমল। তাঁকে অনায়াসে সন্তুষ্ট করা যায় এবং আমরা জানি কৃষ্ণ মাখন পছন্দ করেন।
সুতরাং যদি আমরা ঐকান্তিক সেবা দ্বারা রাধারাণীকে আকৃষ্ট করতে পারি তাহলে পরিশেষে আমরা কৃষ্ণের কৃপা পাব। ভক্তিবিনোদ ঠাকুর গীতাবলীতে আরও লিখেছেন। “যদি কেউ নিজেকে রাধারাণীর একজন বিনীত ভৃত্য বলে মনে করে তখন সে অতি সত্ত্বর গোকুলেশ্বরকে লাভ করতে পারে।”


মাসিক চৈতন্য সন্দেশ সেপ্টম্বর ২০২২ হতে প্রকাশিত
সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।