শ্রীল প্রভুপাদের প্রতি গুয়ানার প্রেসিডেন্টের সম্মানজ্ঞাপন

0
23

কল্যাণ গিরিরাজ দাস: এ.সি. ভক্তিবেদান্ত স্বামী শ্রীল প্রভুপাদের ১২৫তম আবির্ভাব অনুষ্ঠানে অনেক সম্মানিত অতিথি উপস্থিত ছিলেন। শ্রীল প্রভুপাদ আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সোসাইটি (ইস্‌কন) প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। যা গায়ানায় হরে কৃষ্ণ আন্দোলন নামে পরিচিত। উৎসবটি পাঁচ দিন ব্যাপী ছিল, যা ২ থেকে ১ আগস্ট ২০২১ পর্যন্ত হয়। গায়ানার রাষ্ট্রপতির আগমন এবং সংবর্ধনা উদ্‌যাপনটিকে আরো বৈচিত্রময় কর্মসূচিতে পরিণত করে। ইভেন্ট চলাকালীন, রাষ্ট্রপতি ড. ইরফান আলী মূল বক্তব্য প্রদান করেন। রাষ্ট্রপতির মতে, প্রত্যেকেরই স্বাধীনতা এবং মৌলিক অধিকারের নীতি মেনে চলা গুরুত্বপূর্ণ। রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, গায়ানীরা তাদের আধ্যাত্মিক বিশ্বাস সংরক্ষণের জন্য যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সেটি দেশের একীকরণের উন্নয়নেও ব্যবহার করা উচিত। তিনি উল্লেখ করেন যে, গায়ানীদের অবশ্যই বুঝতে হবে যে, সমাজ কিছু নীতি এবং মূল্যবোধ দ্বারা পরিচালিত হয়। তাই এগুলি যে কখনো ভেঙ্গে যাবে না, তা নিশ্চিত করতে তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। গায়ানার অ্যাটর্নি জেনারেল এবং আইন বিষয়ক মন্ত্রী অনিল নন্দলাল বলেন, “গায়ানায় আমাদের ধর্মের স্বাধীনতা আছে, যা আমাদের সংবিধানে মৌলিক অধিকার হিসেবে নিশ্চিত।” বিশ্বের অন্যান্য অংশে যেখানে এখনো যুদ্ধ চলছে এবং মানুষ তাদের ধর্ম পালনের অধিকারের জন্য মারা যাচ্ছে সেসব নিয়েও কিছু বক্তা উল্লেখ করেন। নন্দলাল উল্লেখ করলেন, “একজনের ধর্মীয় বিশ্বাস চর্চার অধিকার। গায়ানায় আমাদের সেটাই আছে এবং সেটাই আমাদের সংরক্ষণ করতে হবে।”
অংশগ্রহণকারীদের তালিকা:
রাষ্ট্রপতি ড. আলী ছাড়াও, সরকারের সক্রিয় এবং প্রাক্তন সদস্য এবং গায়ানিজ সমাজের প্রতিনিধিরা ইস্‌কনের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছিলেন। ডোনাল্ড রামোটার (গায়ানার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ২০১১-২০১৫), অনিল নন্দলাল (অ্যাটর্নি জেনারেল এবং আইন বিষয়ক মন্ত্রী), হিউজ টড (পররাষ্ট্র ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা মন্ত্রী), চার্লস র‌্যামসন জুনিয়র (সংস্কৃতি, যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী), কোয়াম ম্যাককয় (প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মন্ত্রী); ড. কে. জে. শ্রীনিবাস (গায়ানায় ভারতের হাই কমিশনার), ব্রায়ান হল (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের প্রতিনিধি), অধ্যাপক পালোমা মোহাম্মদ মার্টিন (গায়ানা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য), অধ্যাপক গোমাথিয়ানাগাম সুব্রামানিয়ান (বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক গায়ানার- বারবিস ক্যাম্পাস), ড. ভায়োলা রোয়ে (সিরিল পটার কলেজ ফর এডুকেশনের অধ্যক্ষ), রেভারেন্ড রোনাল্ড ম্যাকগেরেল (ইন্টারফেইথ অর্গানাইজেশনের চেয়ারম্যান), প্রবীণচন্দ্র দাভে (ডেমেরারা ব্যাংক লিমিটেডের বোর্ডের চেয়ারম্যান) সহ গায়ানিজ সমাজের অন্যান্য বিশিষ্ট সদস্য।
গায়ানিজ মিডিয়ায় উৎসবটি ব্যাপকভাবে প্রচার করা হয়েছিল। এই পাঁচ দিনের উৎসবের প্রস্তুতি নিতে এক মাসেরও বেশি সময় লেগেছে। শ্রীল প্রভুপাদের জন্য ব্যাস পূজার একটি বিশেষভাবে বিস্তৃত বইয়ে, “অনন্ত প্রেম এবং কৃতজ্ঞতার একটি প্রস্তাব” শিরোনামে, গায়ানার ভক্তরা ইস্‌কনের প্রতিষ্ঠাতা-আচার্যদের আবির্ভাব দিবসের ১২৫ তম বার্ষিকীতে তাদের চিন্তা সংগ্রহ করেছিলেন। উৎসবের কর্মসূচীতে অংশ নেওয়া অন্যদের মধ্যে ছিলেন শ্রীমৎ গুরু প্রসাদ স্বামী, শ্রীপাদ সেসা প্রভু, শ্রীপাদ মহাত্মা প্রভু, শ্রীমৎ ভক্তিমার্গ স্বামী এবং ইন গায়ানার জিবিসি শ্রীপাদ বিরবাহু প্রভু।
“এটা আমাদের জন্য বিশেষ এক মুহূর্ত ছিল যে, বর্তমান মহামারীর সময় সত্ত্বেও, গায়ানার সমাজের এসমস্ত বিশিষ্ট সদস্যরা আমাদের শ্রীল প্রভুপাদকে সম্মান জানাতে এক জায়গায় একত্রিত হতে পেরেছিলেন।” গায়ানার ইস্‌কনের হরে কৃষ্ণ স্টাডি সেন্টারের প্রত্যেকের জন্য, এই উৎসবের জন্য প্রস্তুতি নেওয়াটা বিশেষ আনন্দ ছিল। প্রভুপাদদেব দাস বলেন, ভক্তরা এক মাস আগে থেকেই অনুষ্ঠানটি সফল করার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছিলেন। অনুষ্ঠানটির মূল উদ্দেশ্য ছিল যথাসম্ভব লোককে শ্রীল প্রভুপাদের নাম শোনানো এবং তাঁর কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত করা।


চৈতন্য সন্দেশ অক্টোবর-২০২১ প্রকাশিত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here