জগন্নাথ পুরী বিভিন্ন নাম

প্রকাশ: ১০ জুন ২০২৪ | ১২:০৬ অপরাহ্ণ আপডেট: ১০ জুন ২০২৪ | ১২:০৯ অপরাহ্ণ

এই পোস্টটি 6 বার দেখা হয়েছে

জগন্নাথ পুরী বিভিন্ন নাম

জগন্নাথ পুরী বিভিন্ন নামে পরিচিত। তাদের মধ্যে অন্যতম হল পুরীধাম, পুরুষোত্তম ক্ষেত্র, শ্রীক্ষেত্র, নীলাচল ধাম, দর্শ অবতার ক্ষেত্র, ভৌম বৈকুণ্ঠ, ভূস্বর্গ এবং নৃসিংহক্ষেত্রশঙ্খক্ষেত্র: ওড়িষ্যা অর্থাৎ পুরো উৎকল ৪টি ক্ষেত্রে বিভক্ত। সেই ৪টি ক্ষেত্র হল বিষ্ণুর ৪টি অস্ত্র ১) শঙ্খ ২) চক্র ৩) গদা ৪) পদ্ম । ভুবনেশ্বর হল চক্রক্ষেত্র, জয়পুর হল গদ্যক্ষেত্র, কণার্ক হল পদ্ম-ক্ষেত্র এবং পুরী যেটা ভৌগলিকভাবে দেখতে শঙ্খের মত সেই পুরীধামকে শঙ্খক্ষেত্র বলা হয়। এই শঙ্খ ক্ষেত্রের পশ্চিম কোণে রয়েছে লোকনাথ মহাদেবের মন্দির এবং একেবারে পূর্বে রয়েছে নীলকান্তেশ্বরের মন্দির এবং এই শঙ্খের নাভিতে রয়েছে রোহিনী কুণ্ড, কল্প বট এবং রত্ন-সিংহাসনে উপবেশনরত ভগবান শ্রী জগন্নাথ, বলদেব ও সুভদ্রা।
পুরীধাম: পুরী মানে হল “বসবাসের স্থান”। যিনি পুরী ধামে বসবাস করেন তিনি পুরুষ নামে পরিচিত। পুরী ধাম হল সেই স্থান যেখানে পরমেশ্বর ভগবান শ্রী জগন্নাথদেব অবস্থান করেন অর্থাৎ বসবাস করেন। ‘ধাম’ হল একটি স্থান যেখানে   ভগবান শ্রী জগন্নাথের উপস্থিতিতে সবকিছু পূর্ণ।

দশ অবতার ক্ষেত্র: মাঝেমাঝে ভগবান তার পার্ষদ এবং অনুসারীদের নিয়ে এই পৃথিবীতে প্রকাশিত হন। কিন্তু কিছু স্থান রয়েছে যেখানে ভগবান তার অর্চা অবতার রূপে তার ধাম সহ চিরশাশ্বত অবস্থায় অবস্থান করেন। এই স্থান হল স্বয়ং বৈকুণ্ঠ। কল্পসংহিতায় এটি উল্লেখিত আছে যে,

সাক্ষাৎ বৈকুণ্ঠ রুপং তত
ক্ষেত্রং শ্রী পুরুষোত্তম
ক্ষেত্রনাং অপি ক্ষেত্রং চ
তীর্থনং অপি যদ ভরং
শ্রী পুরুষোত্তম ক্ষেত্র নামে পরিচিত এই স্থান সরাসরি প্রকাশিত বৈকুণ্ঠ। এ স্থান সমস্ত ক্ষেত্র এবং তীর্থের মধ্যে সার্বভৌম।

নীলাচল ধাম : ‘নীল’ মানে হল ‘নীল রঙ’ এবং আচল’ মানে হল ‘সুউচ্চ পর্বত’ কেননা ভগবান এখানে নীল পর্বত শিখরে অবস্থান করেন তাই এই পুরী নীলাচল ধাম নামে পরিচিত। অনেক সময় একে নীলাদ্রি বলেও ডাকা হল। আদ্রি মানে হল পর্বতপুরুষোত্তম ক্ষেত্র : ভগবান জগন্নাথ হলেন পুরুষোত্তম। এই স্থান ভগবানের এত প্রিয় যে ভগবান তার এ ধামকে তার নিজের নামেই নামকরণ করেন। এই ধাম ভগবান থেকে স্বয়ং অভিন্ন।

শ্রীক্ষেত্র: শ্রী মানে হল শ্রী দেবী অর্থাৎ লক্ষ্মী দেবী। শ্রীদেবী ভগবান বিষ্ণুর স্বরূপ শক্তি। যেহেতু এই স্থান শ্রী শক্তির দ্বারা প্রভাবিত তাই এটি শ্রীক্ষেত্র নামেও পরিচিত।

অন্য আরেকটি কারণে এক্ষেত্রকে ‘শ্রী’ বলা হচ্ছে। এটি নির্দেশ করে এই স্থান সবার চেয়ে মহান। ভারতবর্ষে ৪টি ধাম রয়েছে যেগুলোকে একত্রে চতুর্ধাম বলা হয়। এ ধামসমূহ হল পুরী, বদ্রিকাশ্রম, দ্বারকা এবং রামেশ্বরাম। এই সমস্ত ধামসমূহের মধ্যে পুরীধাম হল সর্বোত্তম আর তাই এটি শ্রীক্ষেত্র নামে পরিচিত।

ভূ-স্বর্গ : ভূস্বর্গ মানে পৃথিবীর উপর স্বর্গ। এই স্থানে অতিরিক্ত তাপ, বৃষ্টি অথবা ঠাণ্ডা হাওয়া প্রবাহিত হয় না। ব্রহ্ম পুরাণে বর্ণিত আছে,

পুরুষোত্তম পরম ক্ষেত্রং

নস্তে এব পৃথিবী তলে

ভু স্বর্গং ইতি ভিক্ষ্যতং

দেবনং অপি দুলভং
মধ্যে পুরুষোত্তম ক্ষেত্র একটি অপ্রাকৃত স্থান। পৃথিবীতে এ স্থানের মত অন্য কোন স্থান নেই এবং এমনকি দেবতাদের জন্য এস্থান এবং প্রাপ্ত হওয়া অত্যন্ত দুর্লভ।

সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।