ভগবদ্গীতার বাতায়নরূপী চলচ্চিত্র

0
85

মাধব স্মুলেন: একটি নতুন ২৫ মিনিটের চলচ্চিত্র, ভগবদ্গীতার সারতত্ত্ব (Light of the Bhagavata) যা ভগবদ্গীতার নিরন্তর জ্ঞানকে মর্মস্পর্শী করে তোলে, দর্শকদেরকে পৃথিবী, ছায়াপথ পেরিয়ে আত্মার প্রকৃতি সম্পর্কে শিক্ষা দেয়ার মাধ্যমে এবং তাদের একটি চিন্তাশীল এবং জ্ঞানময় যাত্রার মধ্য দিয়ে, সমস্ত উদ্বেগ থেকে মুক্ত, চিরন্তন, আনন্দময় পৃথিবীতে নিয়ে যায়। চলচ্চিত্রটি ইস্‌কন গুরু এবং জিবিসি শ্রীমৎ ভক্তিবৈভব স্বামী মহারাজ কর্তৃক পরিচালিত হয়। যা নবাগতদের কাছে আকর্ষণীয় করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে যারা কৃষ্ণভাবনা সম্পর্কে কৌতূহলী এবং বর্তমানের ব্যস্ত জীবনের মধ্যে প্রকৃত প্রশান্তি খুঁজে পেতে চান, একইসাথে গীতার দর্শনের প্রতি তাদের বিশ্বাস এবং উপলব্ধিকে শক্তিশালী করতে চান, এমন ভক্তদের অনুশীলন করতে। চলচ্চিত্রটির জন্য শ্রীমৎ ভক্তিবৈভব স্বামীর প্রাথমিক ধারণাটি প্রায় পনেরো বছর আগে এসেছিল, যখন তিনি চেক প্রজাতন্ত্রের রাজধানী প্রাগ-এ অবস্থিত একটি স্টুডিওভিত্তিক বেদ দর্শনের সাথে ভিজ্যুয়াল মিডিয়ার বিকাশ শুরু করেছিলেন এবং শ্রীল প্রভুপাদের গ্রন্থ ভগবদ্গীতার সারতত্ত্ব (Light of the Bhagavata)-এর উপর ভিত্তি করে একটি চলচ্চিত্র তৈরি করার ইচ্ছা করেছিলেন। “কিন্তু তার অত্যন্ত প্রগাঢ় সময়সূচীর কারণে, একজন জিবিসি সদস্য এবং প্রচারক হিসাবে বিশ্বজুড়ে ভ্রমণ করার কারণে, তার কাছে সময় ছিল না,” প্রাগ-এর হরিনাম মন্দির প্রচার কেন্দ্রের সভাপতি ও চলচ্চিত্রটির সাধারণ সহকারী, নীল মাধব দাস বলেন, “যতক্ষণ না তিনি কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে চেক প্রজাতন্ত্রে আটকা পড়েছিলেন, তখন তিনি অতীতে যে প্রকল্পগুলি করতে চেয়েছিলেন তা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।”
চলচ্চিত্রটি ভগবদ্গীতার মূল বিষয়গুলো থেকে যে শিক্ষা উপস্থাপন করে তা হলো, “আপনি এই দেহ নন, আপনি একটি আত্মা,” কর্ম, পুনর্জন্ম , বিভিন্ন ধরণের যোগ, যোগের লক্ষ্য পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এবং পরিশেষে ভগবদ্ধামে ফিরে আসা। শ্রীমৎ ভক্তিবৈভব স্বামীর সাথে সৃষ্ট কাহিনীর অনুসরণ করে, নীল মাধব, যিনি বহু বছর ধরে মহারাজের ব্যক্তিগত সহকারী ছিলেন, ভগবদ্গীতার শ্লোক, কিছু শ্রীমদ্ভাগবত শ্লোক এবং শ্রীল প্রভুপাদের প্রবচন থেকে কিছু উদ্ধৃতি থেকে নিয়ে স্ক্রিপ্টগুলো একত্র করেছিলেন।
মহামারী এবং ভ্রমণের খরচের আধিক্যের কারণে, এই ভিজ্যুয়াল বা দৃশ্যগুলি, যা শ্রীমৎ ভক্তিবৈভব স্বামী এবং নীল মাধব প্রথমে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে শুট করার পরিকল্পনা করেছিলেন, কিন্তু এর পরিবর্তে তা সাবধানে নির্বাচিত, উচ্চমানের ফুটেজ থেকে তৈরি করা হয়েছে। চলচ্চিত্র নির্মাতাদের দ্বারা দুটি মূল দৃশ্য শ্যুট করা হয়েছিল যার একটিতে একজন ভক্তকে চিত্রিত করা হয়েছে, যেখানে নীল মাধব অভিনয় করেছেন, তিনি একটি প্রাচীন দক্ষিণ ভারতীয় মন্দিরে ভগবদ্গীতা পাঠ করছেন এবং অন্য দৃশ্যে রাধা ও কৃষ্ণ এবং গোলোক বৃন্দাবনে গোপ বালকদের দেখানো হচ্ছে। উভয় দৃশ্যই একটি সবুজ পর্দার বিপরীতে চিত্রায়ন করার ফলে, শ্রীমৎ ভক্তিবৈভব স্বামী মহারাজ তাদের চারপাশে সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য তৈরি করতে সক্ষম হন।
এদিকে, রাধা কৃষ্ণের দৃশ্যটিতে প্রাগ থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে কৃষ্ণের ফার্ম নামক এক খামারে সেখানকার খামার সম্প্রদায়ের স্থানীয় শিশু দ্বারা অভিনীত হয়। স্টিভ হাডসন নামক একজন উষ্ণ এবং স্পষ্ট সুরের পেশাদার যোগাযোগ এবং ভয়েসওভার (যারা বিভিন্ন ভিজ্যুয়াল দৃশ্যে কণ্ঠ দেন) প্রশিক্ষক এসবে কণ্ঠ দেন। যার সাথে মহারাজের এক সুমধুর কর্ম-সম্পর্ক গড়ে ওঠে।
২০২১ সালের গ্রীষ্মে সম্পন্ন হওয়ার পর কৃষ্ণের ইয়ার্ড ফার্ম নামক খামারে জন্মাষ্টমী উৎসবের সময় ভগবদ্গীতার সারতত্ত্ব-টি দেখানো হয়েছিল, যখন কোভিড বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল হয়েছিল। তবে এরপরই বর্ধিত বিধিনিষেধের কারণে, চলচ্চিত্রটি অন্য কোনো স্ক্রিনিং পায়নি তবে নভেম্বরে ইউটিউবে সকলের দেখার জন্য মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। ভক্ত এবং নবাগত উভয়ের কাছ থেকে এখন পর্যন্ত প্রতিক্রিয়াগুলো খুবই ইতিবাচক ছিল, যেরূপ প্রতিক্রিয়া চলচ্চিত্র নির্মাতারা আশা করেন। যা শ্রীমৎ ভক্তিবৈভব স্বামী মহারাজকে মূল লক্ষ্যের উপলব্ধির দিকে নিয়ে যাবে।
নীল মাধব বলেন, “চলচ্চিত্রটির মূল লক্ষ্য হল প্রভুপাদের গ্রন্থ পড়তে মানুষকে অনুপ্রাণিত করা। মহারাজ প্রভুপাদের গ্রন্থগুলিকে বিভিন্ন ভিডিও এবং চলচ্চিত্রের মাধ্যমে আরো কাছে নিয়ে আসতে চান, যাতে শ্রীল প্রভুপাদ আমাদের যে জ্ঞান দিয়েছেন তা মানুষকে আরো গভীরভাবে উপলব্ধি করতে সাহায্য করতে পারি। চলচ্চিত্রের শেষে প্রভুপাদের গ্রন্থের প্রচার নিয়ে, মহারাজ বলেছিলেন, এটিই হলো অন্যতম প্রধান আকর্ষণ।”


 

চৈতন্য সন্দেশ জানুয়ারি-২০২২ প্রকাশিত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here