গতিসূত্রের মূল আবিষ্কারক!

প্রকাশ: ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২ | ৭:২২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২ | ৭:২২ পূর্বাহ্ণ

এই পোস্টটি 178 বার দেখা হয়েছে

গতিসূত্রের মূল আবিষ্কারক!

আইজ্যাক নিউটনের অন্তত ২০০০ বছর আগে মহর্ষি কণাদ তিনটি “বৈশেষিক সূত্র” প্রস্তাব করেছিলেন।
মহর্ষি কণাদ-এর ১ম সূত্র (খ্রিস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ শতক): গতির পরিবর্তন প্রভাবিত শক্তির কারণে হয়।
নিউটনের গতির প্রথম সূত্র (১৬শ শতাব্দী): একটি বস্তু তার গতি পরিবর্তন করবে না, যদি না একটি ভারসাম্যহীন শক্তি দ্বারা কাজ করা হয়।
মহর্ষি কণাদ-এর ২য় সূত্র: গতির পরিবর্তন প্রভাবিত বলের সমানুপাতিক এবং বলের দিকে থাকে।
নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র: একটি বস্তুর ত্বরণ প্রযুক্ত নিট বলের সাথে সরাসরি সমানুপাতিক এবং বস্তুর ভরের বিপরীতভাবে সমানুপাতিক।
মহর্ষি কণাদ-এর ৩য় সূত্র: বেগ বিরোধী কাকতালীয় তথা ক্রিয়া এবং প্রতিক্রিয়া সমান এবং বিপরীত।
নিউটনের তৃতীয় সূত্র: প্রতিটি ক্রিয়ার একটি সমান এবং বিপরীত প্রতিক্রিয়া রয়েছে।


 

চৈতন্য সন্দেশ জানুয়ারি-২০২২ প্রকাশিত
সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।