রাশিয়ায় ৩০ বছর: মোদির প্রশংসা

প্রকাশ: ১৮ জুলাই ২০১৮ | ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ১৮ জুলাই ২০১৮ | ৯:৫৫ পূর্বাহ্ণ

এই পোস্টটি 1039 বার দেখা হয়েছে

রাশিয়ায় ৩০ বছর: মোদির প্রশংসা

রাশিয়া প্রতিনিধি: এটা ছিল ২০ মে, ১৯৮৮। ইস্‌কন তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নে (বর্তমানে রাশিয়ায়) প্রথম অফিসিয়ালি নিবন্ধিত হয়। একইসাথে প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতিও লাভ করে। রাশিয়ায় ইস্‌কন ত্রিশ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তাঁর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠান। “আমি জেনে আনন্দিত যে, রাশিয়ায় মস্কো ইস্‌কন সোসাইটি তাদের ত্রিশ বছর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদ্যাপন করতে যাচ্ছে। অনেক সামাজিক ও পারমার্থিক প্রতিষ্ঠান ভারতের জন্য এখন আর্শীবাদ। এসকল প্রতিষ্ঠান কেবল দীন-হীন লোকদেরকে খাবার প্রদান করে না বরং এর পাশাপাশি পৃথিবী জুড়ে তারা ভারতীয় বিশুদ্ধ সংস্কৃতিতে জীবন যাপনের জন্য ভারসাম্য ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ তৈরি করছেন। লাখ লাখ মানুষের অনুপ্রেরণার উৎস ভগবান শ্রীকৃষ্ণ প্রদত্ত শ্রীমদ্ভগবদগীতা উপদেশামৃত। যে জ্ঞান আহরণের উপর ভগবান গুরুত্ব দিয়েছেন বর্তমান সময়ে সে জ্ঞান শ্রেষ্ঠত্বের আসন লাভ করেছে। ভগবান সাফল্য ও ব্যর্থতায় প্রশান্তি লাভের জন্য যে বার্তা গীতায় দিয়েছেন তা এ যুগের মানসিক হতাশায়পূর্ণ জীবন যাপনের ক্ষেত্রে কোনভাবেই অপ্রাসঙ্গিক নয়। আমাদের স্ব-স্ব কর্ম করার জন্য ভগবান বলছেন, বিশেষকরে অপরের স্বার্থে কর্ম করে যা আমাদের সকলের জন্য আলোকবর্তিকা এই কর্ম হতে পারে ভগবদ্গীতা কালাতীত বার্তা পৃথিবী ব্যাপী প্রচারের মাধ্যমে কিংবা ভক্তিচেতনা লালন করার মাধ্যমে ঠিক যেমনটি আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘের মস্কো ইস্‌কন সোসাইটি করছে। তারা অপরের হিত কামনায় অকৃত্রিম মানবতার সেবা সম্পাদন করেছে সমগ্র পৃথিবীতে ইস্‌কনের হরেক-রকমের সামাজিক উদ্যোগ সমূহ খুবই প্রশংসনীয়, বিশেষ করে যারা প্রতিদিন লাখ-লাখ ক্ষুধার্ত, দীন- দরিদ্র লোকের আহারের আয়োজন করছে। আমি আবারও মস্কো ইস্‌কন সোসাইটি সংঘের কল্যাণ কামনা করছি। আশা করছি এই সংঘটনটি প্রবল উৎসাহের সাথে মানবতার ভ্রাতৃত্ববোধের বাণী প্রচার চালিয়ে যাবে।হরেকৃষ্ণ।

(মাসিক চৈতন্য সন্দেশ জুলাই ২০১৮ সালে প্রকাশিত) 

সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।