মালয়েশিয়ায় বন্যার্তদের ত্রাণ বিতরণ

0
68
৭ দিন ধরে প্রায় ১০ হাজারের অধিক প্লেইট খাবারসহ অতিপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী বিতরণ

শ্রীমতি রতি গোপিকা দেবী দাসী
মালয়েশিয়া প্রতিনিধি


সম্প্রতি মালয়েশিয়ায় ভয়াবহ বন্যায় বিধ্বস্ত মানুষের মাঝে ‘ইস্‌কন ফুড ফর লাইফ’ ৭ দিন ধরে প্রায় ১০ হাজারের অধিক প্লেইট খাবারসহ অতিপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী বিতরণ করেন। বন্যা দুর্গত লোকজন অত্যন্ত কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এমন সহযোগিতা পেয়ে। ক্লাং উপত্যকায় (মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের নিকটে অবস্থিত) অতিসম্প্রতি যে বৃষ্টিপাত হয় তা মালয়েশিয়ায় এ যাবৎ কালের মধ্যে সর্বোচ্চ রেকর্ড।
এই ভয়াবহ বন্যায় হাজার হাজার বাসিন্দাকে তাদের বসত বাড়ি হতে সরিয়ে নিতে বাধ্য হয় মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ। রাস্তা-ঘাট পানিতে তলিয়ে যায় এবং অসংখ্য মানুষ খাদ্যাভাবে দিনাতিপাত করতে থাকে। এমন দুর্দিনে ইস্‌কন কুয়ালালামপুরের ভক্তরা একত্রিত হয়ে বন্যা দুর্গতদের জন্য অত্যন্ত চমৎকার খাবার তৈরি করেন। একই সাথে ১০,০০০ এর অধিক প্লেইট খাবার তৈরি ও বিতরণ করতে ভক্তদের এমন ঐক্য ও অকৃত্রিম মানবিক সেবা প্রদানকে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ অভূতপূর্ব ও অত্যাশ্চর্য বিষয় বলে ভূয়শী প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতেও যে কোন প্রকারের দুর্যোগ মোকাবেলায় ভক্তরা সহযোগিতা করবেন সে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তার জন্য আন্তরিকভাবে আবেদন রাখেন। ভক্তদের সুশৃঙ্খল এই মহৎ সেবার জন্য তারা কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
ইস্‌কন কুয়ালালামপুর মন্দিরের অধ্যক্ষ এবং ফুড ফর লাইফ সোসাইটি মালয়েশিয়ার সভাপতি শ্রীপাদ কৃপাসিন্ধু কৃষ্ণ দাস উল্লেখ করেন, এই বন্যা দুর্গতদের ত্রাণ বিতরণ উদ্যোগে সবাই খুবই ভালো সহযোগিতা করেছে যা দেখে তিনি নিজেকে খুবই সৌভাগ্যবান ও খুশি অনুভব করছেন। তিনি যখন ত্রাণ বিতরণের জন্য মাঠে নেমেছিলেন, তখন তিনি দেখেছিলেন বহু-জাতিগত ও বহু-ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর এই দেশের মানুষ কতটাই কৃতজ্ঞ।
ইস্‌কন কুয়ালালামপুরের কো-ইয়ুথ প্রধান শ্রীমতি রতি গোপিকা দেবী দাসী বলেন, “উদ্যোগটিতে তরুণ-তরুণীরা ঐক্যবদ্ধভাবে রন্ধনকারীদের সহযোগিতা করেছে এবং রান্না শেষ হওয়ার পরপরই রান্নাঘর পরিষ্কার করেছে। এই সমস্ত সেবা কার্য সবাই খুব আনন্দের সাথে করেছিল।”
ইস্‌কন কুয়ালালামপুরের টেম্পল কমান্ডার শ্রীপাদ গোকুল দামোদর দাস বলেন, “সাত দিন ধরে আমরা দুর্গতদের ত্রাণ বিতরণ করেছি। এখানে পূর্বে আমি কখনো মানুষকে এইভাবে পানিবন্দী থাকতে দেখিনি। তারা ত্রাণ পেয়ে খুবই আনন্দিত এবং আমরাও বিতরণ করতে পেরে খুবই ধন্য।” তিনি আরো বলেন- এই সময়ে ত্রাণ বিতরণ করা সর্বোচ্চ সেবা।
সর্বোপরি মালয়েশিয়া ইস্‌কন কর্তৃপক্ষ প্রত্যেক ভক্ত ও স্বেচ্ছাসেবকদের এই দূর্যোগে ত্রাণ বিতরণে শক্তি, সময় ও সেবা দানের জন্য আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানান।


 

চৈতন্য সন্দেশ ফেব্রুয়ারী ২০২২ প্রকাশিত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here