ভীষ্ম পঞ্চক ব্রতের তর্পণ বিধি

0
280

একজন ব্যক্তির প্রতিদিন গঙ্গা অথবা যেকোন পবিত্র নদীতে স্নান করা উচিত। নিম্নলিখিত মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে তিনবার ভীষ্মদেবের উদ্দেশ্যে তর্পণ করা উচিত:

তর্পণ মন্ত্র

 

(তর্পণ দেয়ার সময় উপবীতকে পেছনদিকে নিয়ে (যাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য) এবং উভয় হাতে জল নেয়া হয়। মন্ত্র উচ্চারণ করা হয় এবং দুই হাত ডানদিকে এবং নিচে কাত করে নিবেদন করা হয় যাতে জল ডান বৃদ্ধাঙ্গুলির নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। এটি পূর্বপুরুষদের উদ্দেশ্যে নৈবেদ্য নিবেদনের একটি উপায়। আপনারা ভীষ্ম পঞ্চকে এটি ভীষ্মদেবের উদ্দেশ্যে করেন।)

তর্পণ:

ওঁ বৈয়াগ্রপদ্য গোত্রায়
সংস্কৃতি প্রবরায় চ।
অপুত্রায় দদাম্যেতৎ
সলিলং ভীষ্মবর্মণে।।

 

অর্ঘ্য:

বসুনামাবতারায়
শান্তনোরাত্মজায় চ।
অর্ঘ্যং দদামি ভীষ্মায়
আজন্ম ব্রহ্মচারিণে।।

প্রণাম:

ওঁ ভীষ্ম শান্তনবো বীরঃ
সত্যবাদী জিতেন্দ্রিয়ঃ।
অভিরদ্ভিরবাপ্নোতু
পুত্রপৌত্রচিতাং ক্রিয়াম্।।

** যদি আপনার কাছাকাছি কোন পবিত্র নদী না থাকে:
যারা “গঙ্গা, গঙ্গা, গঙ্গা” উচ্চারণ করেন, তারা এই পবিত্র নদীতে স্নান করার সুফল লাভ করেন, যা যেকোন স্থানেই করা সম্ভব। ভক্তেরা যেকোন নদী, হ্রদ অথবা সমুদ্রে স্নান করতে পারেন।

ভগবানের নিকট নিবেদন:
ভক্তরা নিম্নের ফুলগুলি বিগ্রহকে নিবেদন করতে পারেন:

১ম দিন- শ্রীবিগ্রহের শ্রীচরণে অবশ্যই পদ্মফুল,
২য় দিন- শ্রীবিগ্রহের উরুতে বিল্বপত্র,
৩য় দিন- শ্রীবিগ্রহের নাভিদেশে গন্ধদ্রব্য
৪র্থ দিন- শ্রীবিগ্রহের স্কন্ধদেশে জবাফুল এবং
৫ম দিন- শ্রীবিগ্রহের মস্তকে(শিরোদেশে) মালতী ফুল নিবেদন করা উচিত।

যদি কখনো দু’টি তিথি একত্রে পড়ে তবে ঐদিন দুইদিনের উদ্দিষ্ট ফুলগুলো একই দিনে নিবেদন করতে পারেন।

** যদি আপনার নিকট ফুলগুলি না থাকে, তবে ভগবানের নির্ধারিত স্থানে নির্ধারিত ফুলগুলি আপনি মানসিকভাবে নিবেদন করতে পারেন।

উৎস: গরুড় পুরাণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here