ভগবান কর্তৃক প্রদত্ত বিশেষ ছাড়

প্রকাশ: ২ এপ্রিল ২০২৩ | ২:৫১ অপরাহ্ণ আপডেট: ২ এপ্রিল ২০২৩ | ২:৫১ অপরাহ্ণ

এই পোস্টটি 44 বার দেখা হয়েছে

ভগবান কর্তৃক প্রদত্ত বিশেষ ছাড়
আমি তোমাদের মাঘ মাস বা মাধব মাস সম্পর্কে বলব। এই মাসে ভারতে লোকেরা কৃষ্ণকে অনেক পুষ্প নিবেদন করে, প্রাতঃস্নান করে এবং অন্যান্য সেবা করে। তাই প্রচারের সময় ভাল মাসগুলো জেনে নেওয়া ভাল, অবশ্যই যেসব ভক্ত নিত্য কৃষ্ণভাবনা অনুশীলন করছেন তাদের কাছে এটি গুরুত্বপূর্ণ নয়, কেননা তারা প্রতিদিন সেই সুবিধা নিচ্ছেন। তাই যারা ভগবানের সেবা করে না তারা যদি জানতে পারে মাঘ মাসে সামান্যতম ভগবৎ সেবায় বহুগুণ ফল প্রাপ্তি হয়, তবে তারা ভগবৎ সেবা শুরু করবে। বছরে তিনটি মাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ, আর দামোদর মাস ভগবানের কাছে খুবই প্রিয়। এই মাসে আমরা বিভিন্ন তপশ্চর্যা অনুশীলন করি, যেমন আহার বিহারের সংযম ও বেশি সংখ্যক নাম জপ।বৈশাখ মাসে নৃসিংহ চতুদর্শী ও চন্দন যাত্রা হয়, এই মাসটি বিগ্রহের সামনে নৃত্য করার জন্য, দান করা ও বিগ্রহ সেবার জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এই মাসে ভগবানের বিভিন্নরকম সেবা করা হয়ে থাকে, বেদে মাঘ মাসের গুরুত্ব উল্লেখিত আছে। তাই এই মাসে করণীয়-অকরণীয় সম্পর্কে প্রভুপাদকে আমি একটি চিঠি লিখেছিলাম, শ্রীল প্রভুপাদ প্রত্যুত্তর করেছিলেন যে, নতুন ও অনিয়মিত ক্রেতাদের জন্য আকর্ষণ করতে ভগবান বিশেষ অফার দেন। তিনি একটি দোকানের উদাহরণ দিয়েছিলেন যা নতুন ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে বিভিন্ন (ডিসকাউন্ট) অফার দেন। তখন নতুন ক্রেতারা বিশেষ ছাড়ে পণ্য ক্রয়ের সুবিধা নিতে পারেন। এটা একটি ভাল সুযোগ, সাধারণত লোকেরা সকালে উঠে মঙ্গলারতিতে যেতে এবং প্রাতঃস্নানে যেতে চায় না; কিন্তু ভক্তরা তা প্রতিদিন করে থাকেন। এমনকি এই মাসে যদি কেউ ভোরে গরম জলেও স্নান করে তার অন্যান্য সময়ে স্নানের চাইতে ছয়গুণ বেশি ফল দেয়। আর যদি কেউ ঠাণ্ডা জলে স্নান করে তবে বার গুণ ফল লাভ করবে, পুকুরে স্নান করলে একশত গুণ, যদি সেটা গঙ্গায় করা হয় তবে ১০০০ গুণ এবং ত্রিবেনীতে স্নান করলে ১০০০০০ গুণ। কিন্তু ভক্তরা সেটি প্রতিদিনই করছে, ভগবানকে সন্তুষ্ট করার জন্য, কিন্তু অভক্তরা এটিকে সুযোগ হিসাবে নিতে পারে ।
সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।