নিউইয়র্কে মহাবিশ্বের রহস্য সেমিনার

0
610

 Hare Hrishna. ctgনিউইয়র্ক প্রতিনিধি: ভক্তিবেদান্ত ইন্সটিটিউট ফর হায়ার স্টাডিস আয়োজন করে সদাপূত দাসের একই নামের গ্রন্থের আলোকে সেমিনার যার নাম :Mysteries of the Sacred Universe. নিউইয়র্ক সিটির ভক্তিসেন্টার আয়োজিত এই সেমিনার প্রদান করেন মুরলী গোপাল দাস।
মুরলী গোপাল দাস আমেরিকার বিখ্যাত ওহিও বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে পদার্থবিদ্যায় পিএইচডি লাভ করেন। এরপর তিনি নাসার গোর্ডাড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারে কিছুকাল ইন্টার্নশিপ করেন। এরপর তিনি পোস্টডক্টরাল স্টাডি সমাপন করেন কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে। এছাড়া তিনি ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ে সংস্কৃত শেখান। তিনি ভক্তিবেদান্ত ইন্সটিটিউট ফর হায়ার স্টাডির একজন সদস্য। তিনি ভক্তি ও বিজ্ঞান বিষয়ক বহু কোর্স চালু করেছেন যার মধ্যে রয়েছে চেতনা ও মহাবিশ্বের বৈদিক ধারণা এবং পদার্থবিদ্যা। তিনি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও বহু আন্তর্জাতিক কনফারেন্সের বক্তা। বর্তমানে তিনি পৌরাণিক বিশ্বব্রহ্মাণ্ড, বৈষ্ণব দর্শন, কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স, ইনফরমেশন থিওরী, জেনারেল রিলিটিভিটি ও চেতনার বিজ্ঞান বিষয়ে গবেষণা করছেন।
সেমিনারের অংশ হিসেবে ছিল মাল্টিমিডিয়া প্রদর্শনী, ক্লাস ওর্য়াক, যার মাধমে শিক্ষার্থীরা শ্রীমদ্ভাগবতের ৫ম স্কন্ধের কৃষ্ণভাবনাময় বিষয়সমূহ বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে বুঝতে সমর্থ হন। বিশেষত ৫ম স্কন্ধের বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সৃষ্টিতত্ব বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণে আলোচনা করা হয়, সেই সাথে প্রদর্শিত হয় সম্পূর্ণ মহাবিশ্বের গঠন কাঠামোর বিভিন্ন চিত্র। শ্রীল প্রভুপাদের অভিলাষ ছিল বৈদিক কসমোলজিকে বৈজ্ঞানিক সমাজে উন্মুক্ত করা যা অসীম জ্ঞানের আলোক আমাদের সম্মুখে উন্মুক্ত করছে। এছাড়া পৃথিবী থিওরী, ভূগর্ভ দর্শন কিংবা সূর্যকেন্দ্রিক দর্শন আলোচিত হয়।
সেমিনার অংশগ্রহণকারী বিখ্যাতদের মধ্যে ছিলেন শ্রীমৎ রাধানাথ স্বামী, চন্দ্রশেখর স্বামী, রবীন্দ্রস্বরূপ দাস, রামেশ্বর দাস, যোগেশ্বর দাস, সত্যরাজ দাস, রুক্মিনী দাসী। এছাড়াও ভক্তিবেদান্ত ইন্সটিটিউট ফর হায়ার স্টাডিস এর পরিচালক ব্রহ্মতীর্থ দাস। সেমিনারে ভক্ত, বিজ্ঞানী, শিক্ষার্থী ও সেমিনারের বিষয়ে আগ্রহী সাধারণ মানুষ সহ ৪৫ জন উপস্থিত ছিলেন।
মুরারী গোপাল দাস প্রভু পবিত্র মহাবিশ্বের বৈদিক সৃষ্টিতত্ত্ব ও জ্যোতির্বিদ্যার জটিল রহস্য বৈজ্ঞানিক কর্মশালার মাধ্যমে সহজভাবে উপস্থাপন করেন পরিশেষে কনফারেন্সে অংশগ্রহণকারী একজন মন্তব্য করেন, বহু বছর ধরে নিজে নিজে অধ্যয়ন করে ও ভাগবতের বিভিন্ন বিষয়ে দ্বিধান্বিত ছিলাম কিন্তু এই সেমিনারে অংশগ্রহনের পর আমার কাছে সেই বিষয়সমূহের গভীর প্রাঞ্জল ও স্বচ্ছ উপলব্ধি অর্জিত হয়েছে । মুরারী গোপাল দাস প্রভুর সংযুক্ত সৃষ্টিতত্ত্বের বিষয় উপস্হাপন করার কারণে অন্যন্য অংশগ্রহণকারীরা তার বিশেষ প্রশংসা করলেন। তিনি সরলভাবে ব্যাখ্যা করে বলেন, অভিযুক্ত এবং পদার্থবিদ্যার মডেলসহ মহাবিশ্বের ধারনা অন্বেষণের মাধ্যমে বুঝা যায়। ” হরে কৃষ্ণ!

(মাসিক চৈতন্য সন্দেশ আগষ্টে ২০১৮ সালে প্রকাশিত)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here