চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে সনাতন ধর্মালম্বীদের শ্রীমদ্ভগবদগীতা বিতরণ।

প্রকাশ: ২০ জুন ২০১৮ | ৯:৩৩ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ২০ জুন ২০১৮ | ৯:৩৩ পূর্বাহ্ণ

এই পোস্টটি 989 বার দেখা হয়েছে

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে সনাতন ধর্মালম্বীদের শ্রীমদ্ভগবদগীতা বিতরণ।

 চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে সনাতনী কয়েদীদের মাঝে গত ৯ মে ২০১৮ইং বুধবার শ্রীমদ্ভগবদগীতা বিতরণ করা হয়। আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ (ইস্‌কন) চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটির তত্ত্বাবধানে বিভাগীয় প্রধান কার্যালয় নন্দনকাননস্থ শ্রীশ্রী রাধামাধব মন্দির ও শ্রীশ্রী গৌর নিতাই আশ্রমের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় কারাগারের ভিতরে সনাতনী মন্দিরে কয়েদীদের মাঝে শ্রীমদ্ভগবদগীতা ও কৃষ্ণপ্রসাদ বিতরণ করা হয়। নন্দনকানন ইস্‌কন মন্দিরের সভাপতি পণ্ডিত গদাধর দাস ব্রহ্মচারী সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন সিনিয়র জেল সুপার ইকবাল কবির চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডেপুটি জেলার মোহাম্মদ আব্দুস সেলিম। ইস্‌কন সিনিয়র প্রচারক তারণ গৌর হরি দাস। ইসকন নন্দনকানন যুগ্ম সম্পাদক মুকুন্দ ভক্তি দাস অপূর্ব মনোহর দাস। কারাগারে কয়েদীদের মধ্যে জগন্নাথ মিত্র, দীপক দত্ত ভোলা, সন্তোষ চক্রবত্তী,পূর্ণেন্দু বিকাশ আইচ, দেবব্রত চক্রবর্তীসহ তিন শতাধিক পুরুষ ও মহিলা কয়েদীকে শ্রীমদ্ভগবদগীতা ও কৃষ্ণ প্রসাদ প্রদান করা হয়
ইস্‌কন প্রতিষ্ঠতা আচার্য শ্রীল এ.সি. ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ কর্তৃক ১১০টির ও বেশী ভাষায় সংকলিত “শ্রীমদ্ভগবতগীতা যথাযথ” গুরুত্ব সম্পর্কে উপস্থিত বক্তারা আলোচনা করেন । মানব সমাজে ভগবদগীতার অনুশাসন পালন করে সারা বিশ্বের ন্যায় আমরা সুখী হতে পারি। তাতে কয়েদীরা আবেগ আপ্লুত হয়ে তাদের কৃত কর্মের জন্য অনুশোচনা করে গীতাময় জীবন গঠনে সংকল্প গ্রহন করে। দুষ্টের দমন, শিষ্টের পালন করার জন্য পরমেশ্বর ভগাবন শ্রীকৃষ্ণ কংসের কারাগারে আবিভুত হয়।গীতা হচ্ছে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ দ্বারা অর্জুনকে দেওয়া সেই উপদেশ যা আমাদেরকে জীবন যুদ্ধে পলায়ন থেকে পুরুষার্থের দিকে অগ্রসর হতে অনুপ্রেরনা দেয়।
উল্লেখ যে ইস্‌কন সারা বাংলাদেশে প্রতিটি কারাগার যাতে প্রকৃত সংশোধনাগারে পরিণত হয় সে লক্ষ্যে কাজ কাজ করে যাচ্ছে।হরেকৃষ্ণ।

(মাসিক চৈতন্য সন্দেশ জুন ২০১৮ সালে প্রকাশিত)

সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।