গোপন প্রেম হার্টের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি- UK বিশেষজ্ঞ

1
769

শিরোনামটি পড়ে সবারই চমকে উঠার কথা। বিশেষ করে যারা লোকচক্ষুর আড়ালে সমাজে তথা নিজ পরিবারের চোখে ফাঁকি দিয়ে অবলীলায় কারো সঙ্গে গোপন প্রেমের সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের জন্য এ শিরোনাম নিশ্চিতভাবে মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়াবে। আর এ মাথাব্যাথাটা আবিষ্কার করেছেন যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞরাই।অনেক গবেষণার পর গত বছরের প্রথম দিকে তারা সবার কাছে এই চাঞ্চল্যকর তথ্যটি তুলে ধরেন। তাদের গবেষণায় উঠে এসেছে যে, যদি কেউ ঘটা করে কোন আপত্তিকর বিবাহে লিপ্ত হয় তবে তাদের নানা ধরনের অসুস্থতার সঙ্গে হৃদরোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

বিবাহিত অবস্থায় দাম্পত্য কলহ ছাড়াও যারাই অন্যান্য খারাপ ব্যক্তিগত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তাদের জন্যও হৃদরোগের ঝুকিটা বেশি।বিশেষজ্ঞরা এ তথ্যগুলো আবিষ্কার করেছে প্রায় ৯,০১১ জন ব্রিটিশ নাগরিকের উপর গবেষণা চালিয়ে। যাদের অধিকাংশই ছিল বিবাহিত বাকিরা সবাই অন্যান্য খারাপ ঘনিষ্ট সম্পর্কে লিপ্ত ছিল। তারা এসব লোকদের উপর গবেষণা চালিয়ে দেখেছে অধিকংশই ১২ বছর যেতে না যেতেই হার্ট অ্যাটাকের প্রবণতা মারাত্মকভাবে বেড়ে গেছে সঙ্গে রয়েছে হর্টের বিভিন্ন সমস্যা।পক্ষান্তরে যাদের স্বাভাবিক এবং ভালো কিংবা ঝামেলাহীন সম্পর্ক রয়েছে তাদের এই হৃদরোগের ঝুকি অত্যন্ত নগন্য। গবেষকরা এর একমাত্র কারণ হিসেবে দেখছে মানসিক চাপকেই। কেননা আপত্তিকর সম্পর্ক অধিকাংশ সময়েই বিভিন্ন মানসিক চাপ সৃষ্টি করে।

এক্ষেত্রে এ আপত্তিকর সম্পর্ক বলতে সমাজ এবং পারিবারিকভাবে আপত্তি কিংবা পরস্পরের মধ্যে অন্যান্য ভুল বোঝাবুঝি থেকে সৃষ্ট সমস্যা সহ বিবিধ কারণ এর সঙ্গে জড়িত। তাই লন্ডনের ইউনিভার্সিটি কলেজের সঙ্গে জড়িত একজন প্রধান গবেষক বোবার্টো গি ভোগলি এই বিষয়ে বলেক, ‘‘ঠিক আছে, বিবাহিত হওয়াটা বলতে গেলে মোটামুটি সাধারণ মানের ভালে, কিন্তু সাবধান হউন সেই মানুষটির সম্পর্কে সে কোন ধরণের লোক।’’ তিনি অরও বলেন,‘তার গবেষণায়র দলটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছে যদি কোন খারাপ বা আপত্তিকর সম্পর্কের ফলে কোন ধরনের মানসিক চাপের জৈবিক প্রমাণ ধরা পড়েছে সেটি পরবর্তীতে হৃদরোগ সৃষ্টিতে সহায়তা করবে।’ ঐ বছরই এ বিষয়ের উপর আরো একটি গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয়, যাতে অংশগ্রহণ করেছিল প্রায় ৪০০০ নারী ও পুরুষ। সেখানেও বলা হয় যে, একটি আপত্তিকর বা খরাপ সম্পর্ক নারী ও পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রে হৃদরোগের সমান ঝুকি বাড়ায়।

গবেষণাটি সাধিত হয় অনেকগুলো সেচছাসেবকদের সহায়তায়, যারা প্রতিটি প্রার্থীকে বিভিন্ন ধরনের ধরনের প্রশ্নবানে জর্জরিত করে। এসব প্রশ্নগুলোর মধ্যে একটি হল “আপনার সবচেয়ে নিকটের মানুষটিই কি আপনাকে উদ্বিগ্নতা, নানা রকম সমস্যা এবং মানসিক চাপ দেয়?যার অধিকাংশ উত্তরই ছিল না বোধক। আশ্চর্য হলেও সত্য যে, ঐ সব অংশগ্রহণকারীদের উপর একইভাবে প্রায় ১২ বছরের নজরদারীতে ধরা পড়েছিল প্রায় ৫৮.৯ জনই হার্ট এ্যাপাকের সম্মুখীন হয়েছিল এবং অন্যান্যদের অধিকাংশই বিভিন্ন হার্টের সমস্যায় ভুগছিল। যাদের প্রশ্নের উত্তরে না বোধক স্কোর বেশি ছিল তারাই সবচেয়ে বেশি ঝুকিপূর্ণ ছিল। বিশেষজ্ঞদের মতে যারা ধূমপায়ী তাদের জন্য বোনাস হিনেবে রয়েছে হাই ব্লাড প্রেসার এবং অবিসিটি। সুতরাং যারা গোপন প্রেমের সম্পক ছাড়াও অন্যান্যা আপত্তিকর সম্পর্কে জড়িত আছেন তারা এখন থেকেই সাবধান হউন। তা না হলে অকালে কেড়ে নেয়। সূত্র: By lindsey tanner for associated হরেকৃষ্ণ


(মাসিক চৈতন্য সন্দেশ নভেম্বর ২০০৯ প্রকাশিত)

এই রকম চমৎকার ও শিক্ষণীয় প্রবন্ধ পড়তে চোখ রাখুন ‘চৈতন্য সন্দেশ’‘ব্যাক টু গডহেড’

যোগাযোগ: ০১৮৩৮-১৪৪৬৯৯

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here