গদাধর পন্ডিতের আবির্ভাব তিথি

প্রকাশ: ৪ মে ২০১৯ | ১২:৫৫ অপরাহ্ণ আপডেট: ২২ মে ২০১৯ | ৫:৩৩ পূর্বাহ্ণ

এই পোস্টটি 1340 বার দেখা হয়েছে

গদাধর পন্ডিতের আবির্ভাব তিথি

গদাধর পন্ডিত ছিলেন চৈতন্য মহাপ্রভুর একজন ঘনিষ্ঠ সঙ্গী।

   তারা শৈশবকাল তথা সন্যাসী জীবনের এক দীর্ঘ সময় একসঙ্গে কাটিয়েছেন। তিনি  মায়াপুরে শ্রীজগন্নাথ মিশ্রের গৃহ সন্নিকটে থাকতেন । শিশু লীলার সময় গৌরহরি গদাধরকে  সঙ্গে নিয়ে কখনো নিজ অঙ্গনে কখনো গদাধরের গৃহে বিবিধ লীলা খেলা করতেন । গ্রামের পাঠশালায় উভয়ে একসাথে অধ্যয়ন করতেন  ।  গদাধর বয়সে মহাপ্রভুর কয়েক বছরের ছোট । তাঁর পিতার নাম শ্রীমাধব মিশ্র এবং মাতার নাম শ্রীরত্নবতী দেবী। তিনি পঞ্চতত্ত্বের অন্যতম এবং রাধারানীর অবতার ।শ্রীগৌরগণোদ্দেশ দীপিকায় – যিনি ব্রজে শ্রীবৃষভানু কুমারী শ্রীরাধা,তিনি অধুনা শ্রীগদাধর পন্ডিত নামে খ্যাত। গদাধর পন্ডিত শৈশবকাল থেকে ধীর ,শান্ত,নিজ্জনতা প্রিয় ও বৈরাগ্যবান ছিলেন । চৈতন্যদেবের অনুরোধে তিনি পুন্ডরিক বিদ্যানিধির কাছে দীক্ষা গ্রহণ করেন। গদাধর পন্ডিত শ্রীমদ্ভাগবত পাঠ করতেন ।স্বর্পাষদ গৌরসুন্দর বসে শুনতেন । বৈশাখ মাসের অমাবস্যা তিথিতে গদাধর পন্ডিত গোস্বামী আবির্ভূত হন।

 

 

সম্পর্কিত পোস্ট

‘ চৈতন্য সন্দেশ’ হল ইস্‌কন বাংলাদেশের প্রথম ও সর্বাধিক পঠিত সংবাদপত্র। csbtg.org ‘ মাসিক চৈতন্য সন্দেশ’ এর ওয়েবসাইট।
আমাদের উদ্দেশ্য
■ সকল মানুষকে মোহ থেকে বাস্তবতা, জড় থেকে চিন্ময়তা, অনিত্য থেকে নিত্যতার পার্থক্য নির্ণয়ে সহায়তা করা।
■ জড়বাদের দোষগুলি উন্মুক্ত করা।
■ বৈদিক পদ্ধতিতে পারমার্থিক পথ নির্দেশ করা
■ বৈদিক সংস্কৃতির সংরক্ষণ ও প্রচার। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।
■ শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর নির্দেশ অনুসারে ভগবানের পবিত্র নাম কীর্তন করা ।
■ সকল জীবকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কথা স্মরণ করানো ও তাঁর সেবা করতে সহায়তা করা।